Select Menu

Blogger Tips and TricksLatest Tips And TricksBlogger Tricks

Latest

Latest

Travel

Performance

Cute

My Place

Cute

My Place

Slider

Videos

১. একদিনেই গণিতের একাধিক বিষয় সম্পর্কে ধারণা নেয়ার চেষ্টা করতে যাবা না। তোমার কাছে যেই টপিকটা সবচাইতে বেশী সহজ মনে হয় সেই টপিকটা নিয়ে আগে বসো, সেই বিষয়টা নিয়ে আলোচনা করো, অঙ্কগুলো নিজে নিজে করার চেষ্টা করো, প্রয়োজন হলে টিউটরের সাহায্য নাও। তবে খেয়াল রাখতে হবে তুমি যেই বিষয়টা বুঝবা না সেটা নিয়েই টিউটরের সাথে আলোচনা করবা।

২. অনেকেই আছে যারা কোন বিষয় বুঝতে না পারলেই গুগলে সার্চ দেয়। কিন্তু এটা উচিত নয়। তোমার উচিত হবে ভালো বই সংগ্রহ করা এবং নিজে নিজে সমাধান করার চেষ্টা করা। গণিতের মজার সব ধাঁধা সমাধান করার চেষ্টা করো। এই জন্য মুহম্মদ জাফর ইকবাল এর লেখা নিউরনে অণুরণন, নিউরনে আবারো অনুরণন বই দুটি পড়তে পারো। বই দুটিতে চারশ মজার সব ধাঁধা আছে।

৩. ক্লাসের বইয়ের পাঠগুলো যখন শিক্ষক পড়াবেন তখন প্রয়োজনীয় বিষয়, সমীকরণ, সুত্রগুলো খাতায় নোট করে নাও।

৪. যখন কোন একটি অধ্যায় শেষ হবে তখন এমন কিছু প্রশ্ন খুঁজে বের করো যেগুলোর উত্তর দেয়া আছে। এখন তুমি উত্তরগুলো না দেখে সমস্যাগুলোর সমাধান করার চেষ্টা করো। আর হ্যা, যদি প্রয়োজন হয় তবেই ক্যালকুলেটর ব্যবহার করবা। ছোটখাটো কাজগুলো ক্যালকুলেটর ছাড়াই করার চেষ্টা করবা।

৫.  তোমার সমাধান যদি সঠিক হয় তাহলে পরবর্তী সমস্যার দিকে যাও। আর যদি ভুল হয় তাহলে খুঁজে বের করো কোথায় ভুলটা হয়েছে। তবে উত্তর না দেখে! যদি একেবারেই খুঁজে না পাও কেবলমাত্র তখনই উত্তরের সাথে মিলিয়ে ভুলটা খুঁজে বের করবে।

৬. যেকোন পাঠ শেষ করার পরে তুমি সেই পাঠটা নিয়ে তোমার শিক্ষকের সাথে আলোচনা করো। তোমার করা নোটগুলো শিক্ষককে দেখাও। কোথাও ভুল থাকলে সংশোধন করে নাও।

৭. গণিত এমন একটা বিষয় যেখানে মুখস্ত করা বলতে কিছুই নেই। যখন তুমি একটা অধ্যায় শেষ করবে তখন একই রকম আরো সমস্যা সমাধান করো যেগুলো তোমার বইয়ে নেই।

৮. তোমাকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে ‘প্র্যাকটিস মেকস এ ম্যান পারফেক্ট’, কিছু কিছু সমস্যার ক্ষেত্রে তুমি প্রথমবারে সঠিক সমাধান নাও পেতে পারো। এরকম হলে কিছুক্ষণ পরে আবার চেষ্টা করো।

৯. তুমি যে পাঠগুলো সম্পন্ন করেছ সেগুলো নিয়মিতো রিভিউ করো। নইলে ভুলে যাবে।

১০. যখন পরীক্ষা চলে আসবে, তার কিছুদিন আগে থেকেই গণিত বিষয়ে বেশী মনোযোগী হও এবং তোমার শিক্ষকের সাথে সেই বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করো যেগুলো তুমি ভালোভাবে বুঝতে পারোনি।

১১. গণিত বিষয়ে উচ্চতর কোন কোর্স করার আগে এমন কারো সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করো যে আগে কোর্স করেছে।

১২. গণিতের সাধারণ সুত্রগুলি, সমীকরনগুলি মনে রাখতে চেষ্টা করো। তোমাকে সব সমীকরণ মনে রাখতে হবে না। কিছু সমীকরণ মনে রাখলেই চলবে। কারণ একটি সমীকরণ থেকেই তো আরেকটি এসেছে!

১৩. নিজে নিজে টেস্ট পরীক্ষা দাও। এইজন্য সহায়ক বইয়ের সাহায্য নিতে পারো। সহায়ক বইয়ের শেষে বোর্ড পরীক্ষার প্রশ্ন দেয়া থাকে। সেগুলোকে প্রশ্ন হিসেবে ব্যবহার করো। খাতাও নিজে মূল্যায়ন করো।

১৪. সবথেকে বড় কথা প্রতি মুহুর্তে তুমি কোন না কোন নতুন বিষয় শিখছো। গণিত করতে গেলে প্রতিদিনই শিখতে হয় নতুন কোন সমীকরণ, কিংবা নতুন কোন সুত্র। সমীকরণ বা সুত্রগুলো মুখস্ত না করে সুত্রগুলো কিভাবে এসেছে সেটা মনে রাখো।
- -
১. মূল্যবোধ কি পরীক্ষা করে- উপরের সবগুলো
২. গোন্ডেন মিন (Golden mean)- দুটি চরম পন্থার মধ্যবর্তী অবস্থা
৩. ব্যক্তি সহনশীলতার শিক্ষা লাভ করে-মূল্যবোধের শিক্ষা থেকে
৪. সুশাসনের কোন নীতি সংগঠনের স্বাধীনতাকে নিশ্চিত করে-জবাবদিহিতা
৫. কোন রিপোর্ট এ বিশ্বব্যাংক সুশাসনের সংজ্ঞা দেয়- শাসন প্রক্রিয়া ও উন্নয়ন
৬. UNDP সুশাসন ধারণাটির ব্যাখ্যা দেয়- ১৯৯৭ সালে
৮. কোনটি সুশাসনের উপাদান নয়-নৈতিক শাসন
৯. নিচের কোনটি সংস্কৃতির উপাদান নয়- মূল্যবোধ
১০. শূন্যবাদ অর্থ- কিছুই না
-
১. কোনটি জলবায়ুর উপাদান নয়- সমুদ্রস্রোত
২. রামসার সাইট- টাঙ্গুয়ার হাওর
৩. জলজ আবহাওয়াজনিত (Hydro-meteorological Hazards) নয়- ভূমিকম্প
৪. বাংলাদেশের পুরাতন ভূমিরূপ- টারশিয়ারী যুগে
৫. FCDI – Flood Control, Drainage and Irrigation Project এর উদ্দেশ্য- উপরের তিনটি
৬. বাংলাদেশের জলবায়ু- ক্রান্তীয় মৌসুমী জলবায়ু
৭. কোন জেলায় প্লাইস্টোসিন চত্বর ভূমি আছে-গাজীপুর
৮. পলল পাখা জাতীয় ভূমিরূপ কোথায় গড়ে উঠে- নদীর নিম্ন অববাহিকায়
৯. সেন্দাই ফ্রেমওয়ার্ক ২০১৫-২০৩০- দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস কৌশল
১০. আফ্রিকার সাব-সাহারা অঞ্চল কি নামে পরিচিত-সাহেল
১১. জেরেমি বেন্থাম কোন দেশের- যুক্তরাজ্য
-
১. ড্রাই আইস তৈরিতে ব্যবহার- কার্বন ডাই অক্সাইড
২. ক্যান্সার চিকিৎসায় যে বিকিরন- এক্স রে
৩. ব্যাকটেরিয়া কোষে কোনটি উপস্থিত- মাইট্রোকন্ডিয়া
৪. মস্তিকের ডপোপামিন- পারকিনসন
৫. মৌমাছি পালন- এপিকালচার
৬. ডেঙ্গু ছড়ায়- এডিস মশা
৭. স্টিফেন হকিন্স- পদার্থবিদ
৮. নবায়নযোগ্য শক্তির উৎস- সমুদ্রের ঢেউ
৯. রেফ্রিজারেটরে কমপ্রেসরে কি ব্যবহার করা হয়-
১০. পৃথিবীর বারিমন্ডলের জলরাশির শতকরা কতভাগ জল ভুগর্ভ ধারণ করে-
১১. বায়ুমণ্ডলের কোন স্তরে বজ্রপাত হয়- ট্রপোমন্ডল
১২. নিচের কোন উদ্ভিদ কেবল ম্যানগ্রোভ অঞ্চলে দেখা যায়- নিপা পাম
১৩. বায়ুমণ্ডলের কোন স্তরে বেতার তরঙ্গ প্রতিফলিত হয়- আয়নোস্ফিয়ারে
১৪. মা এর রক্তে হেপাটাইসিস বি- জন্মের ১২ ঘণ্টার মধ্যে ভ্যাকসিন ও HHIG শট দিতে হবে
১৫. প্রাকৃতিত গ্যাসের মূল উপাদান- মিথেন গ্যাস
-
1. Which period is known as ‘The golden age of English literature?’
Ans: The Elizabethan Age
2. ‘Jacobean Period’ of English Literature refers to—-
Ans: 1603-1625
3. Where do the following lines occur in?
‘Alone, alone, all, all alone,
Alone on a wide, wide sea……’
Ans: The Rime of the Ancient Mariner
4. ‘For God’s sake hold your tongue, and let me love.’
This line is written by—–
Ans: John Donne
5. Who is the author of ‘Man and Superman’?
Ans: G. B. Shaw
6. The most famous satirist in English literature is —–
Ans: Jonathan Swift
7. Of the following authors, who wrote an epic?
Ans: John Milton
8. The literary term ‘euphemism’ means—–
Ans: in offensive expression
9. Who is not a Victorian poet?
Ans: Alexander Pope
10. The play ‘The Spanish Tragedy’ is written by—-
Ans: Thomas Kyd
11. Who among the following Indian writers is a famous novelist?
Ans: R. K. Narayan
-
1. Which one in the correct indirect narration? ‘Why have you beaten my dog’? he said to me.
Ans: He demanded of me why I had beaten his dog.
2. Which word is closest in meaning to ‘Franchise’?
Ans: privilege
3. ‘Once in a blue moon’ means—–
Ans: very rarely
4. ‘A retired officer lives next door.’ Here the underlined word (retired) is used as a/an—-
Ans: Participle (It’s past participle adjective)
5. Choose the appropriate preposition in the blank of the following sentence:
Eight men were concerned —- the plot.
Ans: in
6. When water —– it turns into ice.
Ans: freezes
6. Which one is the correct antonym of ‘frugal’?
Ans: spendthrift
7. Choose the meaning of the idiom—
‘Take the bull by the horns.’
Ans: To challenge the enemy with courage
8. I still have —- money.
Ans: a little
9. Select the right compound structure of the sentence:
‘Though he is poor, he is honest.’
Ans: He is poor but honest.
10. Tourists — their reservations well in advance if they want to fly to Cox’s Bazar.
Ans: had better get
11. The sun went down. The underlined word (down) is used here as a/an—
Ans: adverb
12. What is the plural form of the word ‘louse’?
Ans: lice
13. Choose the correct sentence:
Ans: He refrained from taking any drastic action.
14. Which one of the following words is in singular form?
Ans: Radius
15. Identify the right passive voice of ‘It is impossible to do this’.
Ans: This is impossible to be done.
16. ‘Mutton’ is a/an—-
Ans: Material Noun
17. ‘Reading is an excellent habit. ‘ Here the underlined word (reading) is a—-
Ans: Gerund
18. Which of the following words is an example of a distributive pronoun?
Ans: either
19. A speech of too many word is called—-
Ans: A verbose speech
20. ‘Strike while the iron is hot.’ Is an example of—
Ans: Adverbial Clause (Here ‘while the iron is hot’ is an adverbial clause)
21. Select the correctly spelt word:
Ans: heterogeneous
22. ‘Among’ is a preposition that is used when— people are involved.
Ans: more than two
-
সাধারণ জ্ঞানঃ আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী
১. ফিফা ২০২২ হবে- কাতার
২. ওআইসির দাপ্তরিক ভাষা- তিনটি (আরবি+ইংরেজি+ ফ্রেন্স)
৩. এসডিআইকে বলা হতো- তারকা যুদ্ধ
৪. কপ-২১এ অংশগ্রহণকারী জাতি- ১৯৬ (১৯৫দেশ + ইইউ)
৫. রোহিঙ্গারা নাগরিকত্ব হারায়- ১৯৮২ সালে
৬. অক্টোবর বিপ্লবের নেতৃত্ব- লেনিন দিয়েছেন
৭. দুই পরাশক্তির মাঝের দেশ- বাফার স্টেট
৮. পিংপং হচ্ছে- টেবিল টেনিস
৯. বিআরআই প্রস্তাবক- চীন
১০. জাতিসংঘের সহযোগী সদস্য নয়- আসিয়ান
১১. সার্কের সদরদপ্তর- কাঠমাণ্ডু, নেপাল
১২. ১৯৯৫ গোল্ডেন জুবেলি- UNO (জাতিসংঘ) (১৯৪৫ সালে প্রতিষ্ঠিত। ৯৫ এ ৫০ বছর)
১৩. অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশন্যাল- মানবাধিকার সংগঠন
১৪. UNHCR (ইউএনএইচসিআর) সদরদপ্তর -জেনেভা
১৫. ভারতের প্রাচীন রাজনৈতিক দল- ন্যাশনাল কংগ্রেস
১৬. ওজনস্তর রক্ষা বিষয়ক চুক্তি- মন্ট্রিল প্রোটোকল
১৭. নৈরাজ্য হলো- নব্য মার্কসবাদ
১৮. প্রাকৃতিক আইনের উদ্ভব-জন লক, হবসন হুগো, গ্রেসিয়াস এর লেখনী থেকে
১৯. ইমপেরিয়ালিজম, দ্য হাইয়েস্ট স্টেশ অব ক্যাপিটালিজম- লেনিন লিখেছেন
২০. গুয়ামের গভর্নর- অ্যাডি ক্যালভো
-
সাধারণ জ্ঞান - বাংলাদেশঃ

. বাংলাদেশের তৈরী প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইটের নাম : ব্র্যাক অন্বেষা
. বাংলাদেশ এবং মিয়ানমারের সমুদ্রসীমা বিরোধ নিস্পত্তি করে কোন সংস্থা : International Tribunal forthe Law of the Sea
. বাংলাদেশ সর্বাধিক পরিমান অর্থের পণ্য আমদানি করে : চীন থেকে
. মুজিবনগর সরকারের ত্রাণ এবং পুনর্বাসন মন্ত্রী কে ছিলেন: এইচ এম কামরুজ্জামান
. কিসের ভিত্তিতে পূর্ব বাংলায় ভাষা আন্দোলন হয়েছিল : বাঙালী জাতীয়তাবাদ
. ১৯৫৪ সালে পূর্ব বাংলা প্রাদেশিক নির্বাচনে যুক্ত ছিলেন না : নবাব স্যার সলিমুল্লাহ
. জুম চাষ হয় : খাগড়াছড়িতে
. চাকমা জনগোষ্ঠীর লোকসংখ্যা সর্বাধিক : রাঙামাটিতে জেলায়
. বাংলাদেশের প্রথম আদমশুমারি হয় : ১৯৭৪ সালে
১০. বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনে কৃষিখাতের অবদান : নিয়মিতভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে
১১. বাংলাদেশের অন্যতম বিশেষায়িত ব্যাংক: বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক
১২. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ এর সংবিধানের কোন ধারায় সকল নাগরিকের সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে : ধারা ২৭
১৩. বাংলাদেশ ইকোনমিক রিভিউ ২০১৬ অনুসারে বাংলাদেশের শিশু মৃত্যুর হার (প্রতি হাজার জীবিত জন্মে): ৩১ জন ; [৩০জন]
১৪. ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা মেয়াদে প্রতিবছর বাংলাদেশের গড় প্রকৃত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষমাত্রা: .%
১৫. ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাংলাদেশের গড় মূল্যস্ফীতি ছিল - .%
১৬. বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনে জ্বালানি হিসেবে সর্বাধিক ব্যবহৃত হয় : প্রাকৃতিক গ্যাস
১৭. প্রাচীন বাংলার হরিকেল জনপদ অঞ্চলভুক্ত এলাকা : চট্টগ্রাম '
১৮. নিম্নের মোঘল সম্রাটদের মাঝে কে প্রথম আত্মজীবনী লিখেছিলেন : বাবর
১৯. ঐতিহাসিক ছয় দফা ঘোষণা করা হয় ১৯৬৬সালেরফেব্রুয়ারিতে
২০. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সংবিধান মতে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নিয়োগের মেয়াদকাল : বছর.
২১. দেশের কোন এলাকাতেই ভোটার হননি এমন ব্যক্তি সংসদ নির্বাচনে: কোনোভাবেই প্রার্থী হতে পারবেন না *
২২. কোনটি স্থানীয় সরকার নয় : পল্লী বিদ্যুৎ
২৩. আইন প্রণয়নের ক্ষমতা - জাতীয় সংসদের
২৪. সমাজের শিক্ষিত শ্রেণীর যে অংশ সরকার না কর্পোরেট গরূপে থাকে না কিন্তু সরকারের উপর প্রভাব বিস্তার করার ক্ষমতা রাখে- সুশীল সমাজ
২৫. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচিত হওয়ার ন্যূনতম বয়স : ৩৫ বছর
২৬. বাংলাদেশের জাতীয় আয় গণনায় দেশের অর্থনীতিকে কয়টি ভাগে ভাগ করা হয় :
২৭. টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে কে প্রথম ডবল সেন্ঞ্চুরী করেন : মুশফিক
২৮. নিচের কোনটি নাগরিকের দায়িত্ব: রাস্তায় ট্রাফিক আইন মেনেচলা
২৯. মায়ানমারের সাথে বাংলাদেশের কয়টি জেলার সীমান্ত আছে: টি
৩০. পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তচুক্তি কত সালে স্বাক্ষরিত হয়: ১৯৯৭
-
দুই দিন আগে কি পড়ছিলা ভুলে গেছো। কিন্তু গত ঈদে কই নামাজ পড়ছিলা, কয়েক বছর আগে এসএসসি রেজাল্টের সময় কই ছিলা, ঠিকই মনে আছে। তারমানে তোমার পড়ালেখা মনে না থাকলেও, বাকি সব ঠিকই মনে থাকে। তাই বাকি সব মনে রাখার স্টাইলে খুব সহজেই পড়ালেখা মনে রাখতে পারবে-

1: আগ্রহ নিয়ে খালি মাথায় পড়তে বসো:
খেলা, মুভি দেখার জন্য তুমি যেমন আগ্রহ নিয়ে, জিতার আশা নিয়ে বসো। পড়ার সময়ও একইভাবে, নিজের ভিতর থেকে আগ্রহ নিয়ে, পড়া কঠিন, মনে থাকে না, বুঝি না- এইসব ভুলে, খালি মাথা নিয়ে বসতে হবে। সেই জন্য ভোরে উঠে পড়তে বসলে মাথা ক্লিন থাকে এবং পড়া দ্রুত মাথায় ঢুকে। 

2: ছোট ছোট অংশে ভাগ করে পড়ো
খুব সিম্পল একটা উদাহরণ দেই। ধরো তোমার একটা ফোন নাম্বার মনে রাখা দরকার। এখন 01711984696 পুরাটা একসাথে পড়লে দুই মিনিট পরেই ভুলে যাবা। তাই ভেঙ্গে ভেঙ্গে 01711 -984 -696 স্টাইলে পড়ো। পড়ার সময় চিন্তা করো- "01711 (আধা সেকেন্ড দম নিয়ে) 984 (আধা সেকেন্ড দম নিয়ে) 696”, তাহলে মনে রাখা সহজ হবে। এরপর নাম্বারটা ব্রেইনে সেট করার টার্গেট নিয়ে খেয়াল করে করে তিনবার পড়ো। দুইবার না দেখে কাগজে লিখো। দেখবা এক মাসেও এই নাম্বার ভুলবা না। শুধু ফোন নাম্বার না, বড় সাইজের প্রকারভেদ, ব্যবসায় নীতি, বিশাল প্রমাণ এই সিস্টেমে ভাগ ভাগ করে পড়ো।

3: মেইন পয়েন্টকে ক্লু হিসেবে ব্যবহার করো
যেমন ধরো নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র- "কোন বস্তুর ভরবেগের পরিবর্তনের হার প্রযুক্ত বলের সমানুপাতিক এবং বল যে দিকে ক্রিয়া করে বস্তুর ভরবেগের পরিবর্তন সেদিকেই ঘটে।" পড়ার সময় নিজেই নিজেকে জিজ্ঞেস করবা- এই সূত্রের মেইন পয়েন্ট কি? একটু খেয়াল করলেই বুঝতে পারবা এই সূত্রের মেইন পয়েন্ট হচ্ছে- "ভরবেগের পরিবর্তন"। এবং ভরবেগের পরিবর্তনের দুইটা বৈশিষ্ট্য বলছে। এক: ভরবেগের পরিবর্তন- বলের সমানুপাতিক। দুই: ভরবেগের পরিবর্তন- বলের দিকে।
এখন তোমার ব্রেইনে সূত্রের নামের সাথে মেইন পয়েন্টের কানেকশন সেট করা লাগবে। যাতে সূত্রের নাম শুনার সাথে সাথেই মূল বিষয়বস্তু ব্রেইনে ভেসে উঠে। সেজন্য প্রথমে সূত্রের নাম লিখবা তারপর কোলন(:) দিয়ে মেইন পয়েন্ট লিখবা। অনেকটা এইভাবে "নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র: ভরবেগের পরিবর্তন- বলের সমানুপাতিক, বলের দিকে"। এরপর থেকে যতবার সূত্রের নাম দেখবা ততবার কানেকশন এবং ক্লু দিয়ে পুরা সূত্র ইজিলি মনে করতে পারবা।
যদি হাইলাইটার, কলম বা পেন্সিল দিয়ে দাগিয়ে পড়ার অভ্যাস থাকে, তাহলে শুধু মেইন পয়েন্ট বা ক্লু গুলাকে দাগাও। যাতে রিভাইজ দেয়ার সময় চোখ আগে দাগানো অংশের নিচে চলে যায়।

4: পড়ার টপিকের সাথে লাইফের ঘটনা মিশাও
তুমি এক সপ্তাহ আগে কি খাইছিলা ভুলে গেছো। কিন্তু কয়েক মাস আগে ঈদের দিন সকালে কি খাইছিলা বা কয়েক বছর আগে এসএসসি রেজাল্টের সময় কই ছিলা, ঠিকই মনে আছে। তারমানে কোন কিছুর সাথে ইমোশন বা ইস্পেশাল আগ্রহ থাকলে সেই জিনিস আমরা ভুলি না। সো, প্ৰত্যেকটা চ্যাপ্টারের গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের সাথে একটা ইমোশন বা লাইফের স্পেশাল ঘটনা মিশাতে পারলে সেই জিনিস সহজে ভুলবা না।
ধরো, ফিজিক্সের F = ma সূত্র পড়ার সময় ভাবলা- বাসা থেকে মেসে আসার সময় আমি যে বল দিয়ে আমার লাগেজটাকে টানতেছিলাম সেই বল (Force) ছিলো F, লাগেজের মধ্যে যা যা ছিলো সেগুলার ভর(mass) হচ্ছে m আর a হচ্ছে আমার বলের কারণে লাগেজ যে ত্বরণ(acceleration) হইছিলো। তাই লাগেজ টানার সময় আমি F = ma পরিমাণ কাজ করছি। আর আমি যেহেতু জুনের ১১ তারিখ বাসা থেকে মেসে উঠছিলাম তাই জুনের ১১ তারিখ আমার F=ma দিবস। দেখছো, কোন ঘটনা বা স্মৃতির সাথে পড়াকে মিলাতে পারলে সেটা মনে রাখা অনেক সহজ এবং মজার হয়ে যায়। 

5: যত বেশি লিখে লিখে পড়বে তত ভালো
দেখে দেখে পড়ার চাইতে হালকা সাউন্ড বা মনে মনে উচ্চারণ করে পড়া ভালো। কন্সট্রেশন বেশিক্ষণ থাকে। তবে অংক, সূত্রের প্রমাণ, জটিল গ্রাফ অবশ্যই লিখে লিখে পড়বা। দশবার রিডিং পড়ার চাইতে একবার লিখে পড়া বেশি ইফেক্টিভ। যদিও সবকিছু ১০০% লিখে লিখে পড়তে গেলে বেশি সময় লেগে যাবে। তাই গুরুত্বপূর্ণ সূত্র, প্রমাণ বা থিওরি অন্তত একবার না দেখে লিখবে। ম্যাথ কখনোই সমাধান সামনে খোলা রেখে করবা না। বরং পাশের রুমে রাখবা। যতবার আটকে যাবা ততবার উঠে গিয়ে দেখে আসবা। তারপরেও না দেখে দেখে করার প্রাকটিস করো নচেৎ পরীক্ষার হলে গিয়ে আটকে যাবা।

6: নিজেই নিজের টিচার হয়ে যাও
ক্লাসের বন্ধুদের সাথে আড্ডায় পড়ালেখার টপিক নিয়ে আলোচনা করো। কোন কিছু পড়া শুরু করার আগে কোন ফ্রেন্ডের কাছ থেকে বুঝে নিতে পারলে- পড়া বুঝা ও মনে রাখা অনেক সহজ এবং দ্রুত হয়। আর ফ্রেন্ড খুঁজে না পাইলে নিজেই নিজের টিচার হয়ে নিজেকে কোন জিনিস বুঝানোর চেষ্টা করো। কারো কাছে পড়া বুঝতে গেলে তার কাছে ১ ঘন্টার বেশি থাকবা না। তুমি কাউকে পড়া বুঝাতে গেলে গেলে, ১ ঘন্টার বেশি সময় দিবা না। 

7: পড়ার টেবিল, পড়ার রুম
যে সাবজেক্ট পড়বা সেই সাবজেক্টের বই ছাড়া অন্য বই টেবিলে রাখা যাবে না। পড়ার টেবিল দরজার পাশে, ড্রয়িং রুমে রাখবা না। মানুষ আসতে যাইতে ডিস্টার্ব হবে। আবার বারান্দা বা জানালার পাশেও পড়ার টেবিল রাখবা না। নচেৎ কিছুক্ষণ পর পর বাইরে তাকিয়ে নিজের অজান্তেই ১৫-২০ মিনিট নষ্ট করে ফেলবা। পড়ার রুমে কোন ইলেক্ট্রনিক্স যেমন টিভি, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন রাখা যাবে না। মোবাইল বন্ধ করে পাশের রুমে রেখে আসবা। পড়ার সময় ডিকশনারি ব্যবহার করা লাগলে প্রিন্ট করা ডিকশনারি ব্যবহার করবা। 

8: রঙ্গিন করে এঁকে পড়ো
অনেকগুলা বৈশিষ্ট্য, পার্থক্য, প্রকারভেদ মনে না থাকলে। সেগুলার প্রথম বর্ণ দিয়ে একটা শব্দ বা ছন্দ তৈরি করো ফেলো। ভূগোল বা বিজ্ঞানের কঠিন কোন চিত্র বা গ্রাফ থাকলে, গ্রাফের কিছু অংশ কালো, কিছু অংশ নীল, কিছু অংশ লাল রঙের কলম/পেন্সিল দিয়ে আঁকলে, গ্রাফ মনে রাখা সহজ হবে। কোন চ্যাপ্টারের গুরুত্বপূর্ণ গ্রাফ, বিদঘুটে পয়েন্টগুলো কয়েকটা গ্রুপে ভাগ করে আলাদা কালারের কলম দিয়ে খাতায় লিখো। তারপর রিকশায়, বাসে বা সেলুনে চুল কাটার সময় সেই খাতা খুলে সামনে রেখে দিবা। ব্যস, ফ্রি ফ্রি রিভাইজ দেয়া হয়ে যাবে।
ইম্পরট্যান্ট চার্ট, পয়েন্টগুলা কাগজে লিখে দেয়ালে ঝুলিয়ে রাখো। কয়েকটা গ্রাফ সিলিং এ লাগিয়ে দাও। যাতে দিনের বেলায় বিছানায় শুইলে সেগুলা দেখে দেখে রিভাইজ দেয়া যায়। আর মশারির ভিতর শোয়া লাগলে, মশারির উপরে বই বা খাতা রেখে ভিতর থেকে শুয়ে শুয়ে রিভিশন দাও।

9: রিভাইজ, রিভাইজ এন্ড রিভাইজ
গবেষণায় দেখা গেছে- আমরা আজকে সারাদিনে যত কিছু, দেখি, শুনি, জানি বা পড়ি তার ৫দিন পরে চারভাগের তিনভাগই ভুলে যাই। তবে এই ভুলে যাওয়া ঠেকানোর জন্য অনেকগুলা ট্রিকস আছে। যেমন- ৪৫ মিনিট পড়ে ১৫ মিনিটের নিবা এবং সেই ব্রেকে পড়াটা মনে মনে রিভাইজ দাও এবং কোথাও আটকে গেলে আরেকবার দেখে নাও। এবং আজকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু পড়লে আগামীকাল ঘুমানোর আগে এই জিনিস ২০মিনিটে রিভাইজ দিয়ে দিবা। তারপর এক সপ্তাহ পরে আরেকবার রিভাইজ দিলে এই পড়ার ৯০% জিনিস এক মাস পর্যন্ত তোমার মনে থাকবে।
প্রত্যেকটা সাবজেক্টের গুরুত্বপূর্ণ জিনিস, ক্লু, সামারি পয়েন্টগুলা আলাদা আলাদা খাতায় লিখে রাখবা। চ্যাপ্টার ওয়াইজ। তারপর টিউশনি যাওয়ার পথে- রিক্সায়, বাসে, এমনকি স্টুডেন্টকে অংক করতে দিয়ে সেই খাতা দেখতে থাকবা।
যে জিনিসটা আজকে পড়ছো সেটা- গোসল, ভাত খাওয়া, সিঁড়ি দিয়েই নামা, বাসের জন্য অপেক্ষা, এমনকি বাথরুম করার সময় চিন্তা করবা। যতবেশি চিন্তা করবা, যতবেশি মনে মনে রিভাইজ দিবা তত বেশি মনে থাকবে। 

10: বইয়ের পিছনে সামারি লিস্ট
প্রায় সব বইয়ের পিছনেই দুই-এক পাতা সাদা পৃষ্ঠা থাকে। আর না থাকলে স্কচ-টেপ বা পিন দিয়ে লাগিয়ে নিবা। তারপর যে জিনিসগুলা ভুলে যাওয়ার চান্স বেশি বা পরে ভালো করে রিভিশন না দিলে পরীক্ষার হলে লিখতে পারবা না- সেগুলা পেইজ নাম্বার সহ বইয়ের পিছনের সাদা কাগজে লিখে রাখবা। যাতে ৩-৪ ঘন্টা রিভিশন দেয়ার সুযোগ পাইলে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসগুলা পৃষ্ঠা নম্বর দিয়ে খুব সহজেই খুঁজে বের করে রিভিশন দিতে পারো। 

11: ক্লাসে সিনসিয়ার থাকো
পড়ালেখা খুব কঠিন বা বোরিং কিছু না। একটু খেয়াল করলেই পড়ালেখা ইজিয়ার বানায় ফেলা যায়। সেজন্য ক্লাস শুরু হওয়ার সময় থেকে সিনসিয়ার হতে হবে। ক্লাসের ফার্স্ট বেঞ্চে বসে, খেয়াল করে ক্লাস নোট তুলে, সিরিয়াসলি এসাইনমেন্ট করে, বাসায় এসে ঐদিনের লেকচারগুলোকে আধা ঘন্টা করে স্টাডি করলে, পড়া অর্ধেক সহজ হয়ে যায়।

12: সিরিয়াস স্টুডেন্টদের বন্ধু হও
তিনজন সিরিয়াস স্টুডেন্টের সাথে একজন অগা-মগা থাকলেও সে পড়ালেখায় ভালো করা শুরু করবে। আর আড্ডা, সিনেমা, খেলা দেখার পাগল পোলাপানদের সাথে বন্ধুত্ব হলে পড়ালেখায় তোমাকে ছেড়ে পালাবে। সো, কষ্ট হলেও ভালো স্টুডেন্টদের সাথে থেকে তাদের ফলো করো। এটলিস্ট সিরিয়াস স্টুডেন্টদের সাথে উঠাবসা করো- তোমার মানসিকতায় পরিবর্তন আসবে। পড়ালেখায় মন বসবে। রেজাল্ট ভালো হবে। 

13. প্রথম অক্ষর নিয়ে মজার কিছু বানাও
বাংলাদেশ সংবিধানে ১১ টা ভাগ আছে। এই ভাগগুলা পড়ার সময় প্রত্যেকটা পয়েন্টের প্রথম অক্ষর খেয়াল করবি -(প)-প্রজাতন্ত্র, (রি) রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি, (ম) মৌলিক অধিকার, (নি) নির্বাহী বিভাগ, (আ) আইন সভা, (বি) বিচার বিভাগ, (নি) নির্বাচন, (ম) মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, (বা) বাংলাদেশের কর্ম বিভাগ, (জ) জরুরী বিধানাবলী, (স) সংবিধান সংশোধন, বি- বিবিধ। এখন প্রথম অক্ষরগুলা দিয়ে মজার কিছু একটা বানায় ফেল। যেমন, "পরীমনি আবি নিমবাজ সবি" তাইলে আর সংবিধানের ভাগগুলা সহজে আর ভুলবি না। (সংগৃহীত)
-
IFIC Bank Limited is a first generation private sector commercial bank having joint ventures and affiliates abroad. 
 
The Mission of the Bank is to provide service to its clients with the help of a skilled and dedicated workforce whose creative talents, innovative actions and competitive edge make the position unique in giving quality service to all institutions and individuals that IFIC Bank cares for.
 
IFIC Bank Limited recently launched the mobile banking services with an aim to offer various value-added financial services at the doorsteps of both banked and unbanked population.
The Bank is looking for some dynamic individuals for its Mobile Banking Division who is ready to forward his career and contribute to set the mobile Banking of IFIC Bank as one of the topmost in the industry.
 
IFIC bank published a job circular for fresh graduate. The details is-
 
-
Pubali Bank limited is the largest commercial bank in Bangladesh. With the job opportunities in 453 branches a career with us can take you almost anywhere in Bangladesh. Wherever you come from, wherever you want to go, we can offer you exciting career opportunities across the country. Attracting and developing our next generation of leaders is a key priority of Pubali Bank Limited. 
 
Pubali Bank limited Vacancy Announcement for Trainee  Assistant  Teller.


-
Pubali Bank limited is the largest commercial bank in Bangladesh. With the job opportunities in 453 branches a career with us can take you almost anywhere in Bangladesh. Wherever you come from, wherever you want to go, we can offer you exciting career opportunities across the country. Attracting and developing our next generation of leaders is a key priority of Pubali Bank Limited. 
 
Pubali Bank limited Vacancy Announcement for Senior Officer and Officer.
  
 
-